ঢাকা ০১:১৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্যাটিং ব্যর্থতায় টানা চতুর্থ হার বাংলাদেশের

স্পোর্টস রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৯:২৫:৪৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মে ২০২৪ ১১ বার পড়া হয়েছে
ডেইলি আর্থ অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আরেকটি ম্যাচে হতশ্রী ব্যাটিং করে ভারতের বিপক্ষে বড় হার মেনে নিলো নিগার সুলতানা জ্যোতির দল। ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিপক্ষে সিরিজ মিলিয়ে টানা সাতটি টি-টোয়েন্টি হারলো বাংলাদেশের মেয়েরা।

ব্যর্থতার বৃত্ত কিছুতেই ভাঙতে পারছেন না বাংলাদেশের মেয়েরা। সিলেটে ভারতের মেয়েদের কাছে টানা হেরে চলেছেন নিগার সুলতানারা। অসহায় আত্মসমর্পণ করেছেন তাঁরা চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতেও। একাধিক পরিবর্তন এনে এই ম্যাচের একাদশ গড়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু ভাগ্যের চাকা তাতেও ঘোরেনি।

ব্যাটিং ব্যর্থতায় আরেকটা বড় হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে নিগার সুলতানাদের। বৃষ্টি আইনে বাংলাদেশ মেয়েদের ৫৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে আগেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করা হারমানপ্রীত কাউরের দল। ১২৫ রানের জয়ের জন্য খেলতে নেমে ৭ উইকেটে ৬৮ রান করেছে বাংলাদেশ। ভারতীয় মেয়েদের কাছে এটা টানা চতুর্থ হার স্বাগতিক দলটির।

প্রথম তিন ম্যাচের মতো গতকালও তেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারেননি মেয়েরা। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে একাদশে তিনটি বদল এনে ভারতীয় দলকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নিগার সুলতানা। দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে শেফালি ভার্মাকে রিতু মনির ক্যাচ বানিয়ে স্বাগতিকদের সাফল্য এনে দেন শরিফা মনি।

শুরুর ওই ধাক্কা ভারত সামলেও ওঠে স্মৃতি মান্ধানা ও দায়ালান হেমলতার ব্যাটে। ছয় ওভারেই ৫০ ছুঁয়ে ফেলে ভারত। এরপর বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ থাকে কিছুক্ষণ। বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে ম্যাচ কমিয়ে আনা হয় ১৪ ওভারে। হারমানপ্রীত কাউরের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ১২২ রানের বড় স্কোর গড়েন ভারতের মেয়েরা।

ডিএল নিয়মে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১২৫ রান। ৫টি চারে ২৬ বলে ৩৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন হারমানপ্রীত। বাংলাদেশ দলের হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন রাবেয়া খাতুন ও মারুফা আখতার।
রান তাড়ায় যথারীতি হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন। দলীয় ১৮ রানে ফেরেন মুর্শেদা খাতুন। অন্যরাও রাখতে পারেননি তেমন কিছু অবদান। দিলারা আক্তার ২১ রান করলেও বল খেলেছেন ২৫টি। রুবিয়া হায়দারের ১৭ বলে ১৩ রানও ম্যাচের মেজাজের সঙ্গে বড্ড বেমানান। এক শরিফা খাতুনই (১১ রান) শুধু ছুঁয়েছেন দুই অঙ্কের স্কোর।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ব্যাটিং ব্যর্থতায় টানা চতুর্থ হার বাংলাদেশের

আপডেট সময় : ০৯:২৫:৪৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মে ২০২৪

আরেকটি ম্যাচে হতশ্রী ব্যাটিং করে ভারতের বিপক্ষে বড় হার মেনে নিলো নিগার সুলতানা জ্যোতির দল। ঘরের মাঠে অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের বিপক্ষে সিরিজ মিলিয়ে টানা সাতটি টি-টোয়েন্টি হারলো বাংলাদেশের মেয়েরা।

ব্যর্থতার বৃত্ত কিছুতেই ভাঙতে পারছেন না বাংলাদেশের মেয়েরা। সিলেটে ভারতের মেয়েদের কাছে টানা হেরে চলেছেন নিগার সুলতানারা। অসহায় আত্মসমর্পণ করেছেন তাঁরা চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতেও। একাধিক পরিবর্তন এনে এই ম্যাচের একাদশ গড়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু ভাগ্যের চাকা তাতেও ঘোরেনি।

ব্যাটিং ব্যর্থতায় আরেকটা বড় হার নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে নিগার সুলতানাদের। বৃষ্টি আইনে বাংলাদেশ মেয়েদের ৫৬ রানের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে আগেই সিরিজ জয় নিশ্চিত করা হারমানপ্রীত কাউরের দল। ১২৫ রানের জয়ের জন্য খেলতে নেমে ৭ উইকেটে ৬৮ রান করেছে বাংলাদেশ। ভারতীয় মেয়েদের কাছে এটা টানা চতুর্থ হার স্বাগতিক দলটির।

প্রথম তিন ম্যাচের মতো গতকালও তেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়তে পারেননি মেয়েরা। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে একাদশে তিনটি বদল এনে ভারতীয় দলকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে পাঠিয়েছিলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক নিগার সুলতানা। দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে শেফালি ভার্মাকে রিতু মনির ক্যাচ বানিয়ে স্বাগতিকদের সাফল্য এনে দেন শরিফা মনি।

শুরুর ওই ধাক্কা ভারত সামলেও ওঠে স্মৃতি মান্ধানা ও দায়ালান হেমলতার ব্যাটে। ছয় ওভারেই ৫০ ছুঁয়ে ফেলে ভারত। এরপর বৃষ্টিতে খেলা বন্ধ থাকে কিছুক্ষণ। বৃষ্টির পর খেলা শুরু হলে ম্যাচ কমিয়ে আনা হয় ১৪ ওভারে। হারমানপ্রীত কাউরের ঝোড়ো ব্যাটিংয়ে ১২২ রানের বড় স্কোর গড়েন ভারতের মেয়েরা।

ডিএল নিয়মে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ১২৫ রান। ৫টি চারে ২৬ বলে ৩৯ রানের ঝোড়ো ইনিংস খেলেন হারমানপ্রীত। বাংলাদেশ দলের হয়ে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন রাবেয়া খাতুন ও মারুফা আখতার।
রান তাড়ায় যথারীতি হুড়মুড়িয়ে ভেঙে পড়েছে বাংলাদেশের ব্যাটিং লাইন। দলীয় ১৮ রানে ফেরেন মুর্শেদা খাতুন। অন্যরাও রাখতে পারেননি তেমন কিছু অবদান। দিলারা আক্তার ২১ রান করলেও বল খেলেছেন ২৫টি। রুবিয়া হায়দারের ১৭ বলে ১৩ রানও ম্যাচের মেজাজের সঙ্গে বড্ড বেমানান। এক শরিফা খাতুনই (১১ রান) শুধু ছুঁয়েছেন দুই অঙ্কের স্কোর।